সকাল ৮:৫২, মঙ্গলবার, ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ১৫ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী
BREAKING NEWS
Search

সোনারগাঁয়ে কোনো যুবলীগ নেতা বালু উত্তলনে জড়িত নয় রফিকুল ইসলাম নান্নু

31

সোনারগাঁও প্রতিনিধিঃ  সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নু বলেছেন, সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগের কোন নেতাকর্মী মেঘনা নদী থেকে বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত নয়। শুধু বালুই নয় কোন অনিয়ম ও দূর্নীতির সাথেও জড়িত নয়। প্রত্যেক যুবলীগ কর্মী তার অবস্থান থেকে নিজ নিজ ব্যবসা বানিজ্য পরিচালনা করে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। দলের আন্দোলন সংগ্রামে ভুমিকা রেখে চলেছে। আমি আমার যুবলীগকে নিয়ে গর্ব করতে পারি। একজন পিতা যেমন সন্তানদেরকে বুকের মধ্যে আগলে রাখে আমিও তেমনি আমার প্রাণের সংগঠন যুবলীগের কর্মীদের বুকের ভেতর আগলে রাখি। তারা যাতে কোন অনিয়ম, দূর্নীতি দখলদারী ও সন্ত্রাস করতে না পারে সেজন্য প্রতিনিয়ত তাদের সাথে সভা করে দিক নির্দেশনা দিয়ে থাকি। ফলে আমার যুবলীগ অন্য উপজেলাগুলোর চাইতে ভিন্ন ও শক্তিশালী সংগঠন। বুধবার দুপুরে নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকমের সাথে একান্ত সাক্ষাতকালে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি কিছু গনমাধ্যম বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবীর হোসেনকে নিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশ করে। এ সংবাদটি সর্ম্পূন মিথ্যা বানোয়াট। নবীর হোসেন কোন সময় মেঘনা নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত ছিলনা। সে স্থানীয় ভাবে জমির ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করে। তার একটি ভাল্কহেড রয়েছে যেটা বিভিন্ন লোকের কাছে ভাড়া দিয়ে রেখেছে। এছাড়া সে গত ২ বছর আগে আনন্দবাজার হাটটি ইজারা নিতো। এখন একটি মিথ্যা হত্যার মামলার জন্য সে ইজারা বাদ দিয়ে জমির ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। কিছু লোক উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে তাকে সমাজের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করতে ও বৈদ্যেরবাজার যুবলীগের বদনাম করার জন্য মিথ্যা তথ্য সাংবাদিকদের দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করেছে। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। সাথে সেই সব গণমাধ্যমকে বলব আপনারা সংবাদ প্রকাশ করার আগে একজন ব্যক্তির ভাল করে খোঁজ খবর নিয়ে সংবাদ পরিবেশন করবেন যাতে ওই সংবাদে একজন ব্যক্তি সমাজে হেয় প্রতিপন্ন না হয়। তিনি বলেন, আমার জানামতে মেঘনা নদীর ইজারা নিয়েছে এস. কে এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। তারা সরকারের কাছ থেকে দরপত্র আহবানের মাধ্যমে চর ইজারা দিয়ে বালু উত্তোলন করছে। বালু উত্তোলনে যদি কোন অনিয়ম হয়ে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে সংবাদ পরিবেশন করুন যুবলীগের কোন নেতা নিয়ে নয়। বালু উত্তোলনে যারা জড়িত তাদের নাম উল্লেখ না করে যুবলীগকে ঘিরে সংবাদ প্রকাশ করার অর্থ যুবলীগের বদনাম করা। সবশেষে আমি সাংবাদিক ভাইদের সুস্বাস্থ্য কামনা করে ভবিষ্যৎতের বস্তুনিষ্ট সংবাদ প্রকাশ করবে বলে আমি আশা করি।

এব্যাপারে বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবীর হোসেন জানান, বৈদ্যেরবাজার এলাকার আনন্দবাজার বালুমহাল এস.কে এন্টারপ্রাইজ নামের একটি কোম্পানী ইজারা এনে মেঘনা নদী থেকে বালু উত্তোলন করছে। সেখানে আমার কোন সম্পৃতা নাই, আগেও ছিলনা। একটি মহল আমাকে সমাজে হেয় করে আমার অর্জিত সুনাম নষ্ট করার জন্য উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে সাংবাদিক ভাইদের ভুল তথ্য দিয়ে আমাকে জড়িয়ে সংবাদ পরিবেশন করছে।



sky television /স্কাই টিভি