রাত ১:১০, শুক্রবার, ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ৮ই রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
BREAKING NEWS
সারা দেশের ন্যায় কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলায় আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হলো যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ভাগ্নে, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ ফজলুল হক মনি’র ৮১ তম জন্মদিন। কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, কেক কাটা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা।
Search

ইসলামের নামে যারা মানুষের হাত-পায়ের রগ কাটে তারা ইসলামের শত্রু : তথ্যমন্ত্রী

41

ঢাকা, তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, যারা ইসলামের নামে মানুষের হাত-পায়ের রগ কাটে তারা ইসলামের শত্রু।
তিনি বলেন, ‘ইসলামের কথা বলে যারা মানুষের হাতে পায়ের রগ কাটে ওরা প্রকৃতপক্ষে ইসলামের শত্রু। তাদের কারণে আজ পৃথিবীতে যারা ইসলাম পছন্দ করে না, মুসলমানদের পছন্দ করে না, তারা নানা ভাবে নানা প্রতিকূল অবস্থা সৃষ্টির সুযোগ পাচ্ছে।’
তথ্যমন্ত্রী রোববার গুলিস্থানের কাজী বশির মিলনায়তনে ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। আশেকানে গাউছিয়া রহমানিয়া মইনিয়া সহিদীয়া মাইজভান্ডারীয়া এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
সৈয়দ সহিদ উদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শামসুল হক টুকু বক্তব্য রাখেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এই উপমহাদেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল কোন যুদ্ধ-বিগ্রহের মধ্য দিয়ে নয়, তরবারির মধ্যে নয়, পীর-আওলিয়াদের মাধ্যমে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। অথচ আজ একটি পক্ষ পীর আওলিয়াদের ব্যাপারে মুসলমান সম্প্রদায়ের মধ্যে নানা ধরনের কটু কথা বলতে দ্বিধা করে না। তাদের হাত ধরেই এই উপমহাদেশের মানুষ ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আশ্রয় গ্রহণ করেছে।’
তিনি বলেন, ‘আজ বলা হয় ইসলামই জঙ্গি। ইসলাম কিন্তু জঙ্গিবাদের কথা বলে না। সে জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব সভায় যখন আন্তর্জাতিক কোন সম্মেলন হয়, সেখানে এর প্রতিবাদ করেছেন। দয়া করে ইসলামী জঙ্গিবাদ বলবে না। কারণ ইসলাম জঙ্গিবাদের কথা বলে না। জঙ্গি বলেন- কিন্তু ইসলামী জঙ্গি বলবেন না।’
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজ যদি মুসলমানদের মধ্যে ঐক্য থাকতো, সৌহার্দ্য যদি দৃঢ় থাকতো- তাহলে প্যালেস্টাইনে এত শিশু হত্যা করতে পারতো না ইহুদীরা।’
তিনি বলেন, মুসলিম রাষ্ট্রের মধ্যে ঐক্য থাকলে মায়ানমার থেকে মুসলিমদের নির্যাতন করে বের করে দিতে পারতো না। পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় যে নির্যাতন হয়, তা হতো না।
আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘এই পবিত্র দিনে প্রার্থনা- কামনা মুসলমানদের ঐক্য সংহতি যেন আরো সুদৃঢ় হয়। ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলাম অন্য ধর্মাবলম্বীদের জোর করে মুসলমান বানায় না।’
হাছান মাহমুদ বলেন, আমাদের দেশ সম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ হিসেবে পৃথিবীর সামনে উদাহরণ। দেশে ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার। কিন্তু কিছু কিছু মানুষ ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টির করার চেষ্টা করে। ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টির মাধ্যমে মৌলবাদ সৃষ্টির অপচেষ্টা চালায়। এগুলোর ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে যাতে করে কেউ বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করতে না পারে। সেজন্য সতর্ক থাকতে হবে।বাসস)



sky television /স্কাই টিভি