রাত ১১:৪০, মঙ্গলবার, ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৮ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, ১১ই রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

ইনজুরি সময়ের গোলে মিশরকে হারালো সৌদি আরব

54

ভলগোগ্রাদে (রাশিয়া), ইনজুরি টাইমের গোলে আজ রাশিয়া বিশ্বকাপে সৌদি আরব ২-১ গোলে হারিয়েছে মিশরকে। নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষে সৌদি আরব ও মিশর ম্যাচ ১-১ সমতায় ছিলো। এরপর ইনজুরির সময়ের পঞ্চম মিনিটে গোল করে ২-১ ব্যবধানে জিতে এবারের ফুটবল বিশ্বকাপে প্রথম জয়ের স্বাদ নেয় সৌদি আরব। এই জয়ে গ্রুপ পর্বে তৃতীয় হলো সৌদি আরব। আর জয়হীন থাকা মিশর গ্রুপে চতুর্থ হলো।
প্রথম দু’ম্যাচ হেরে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে নিজেদের বিদায় আগেই নিশ্চিত করে ফেলে মিশর ও সৌদি আরব। তাই এ ম্যাচটি নিয়মরক্ষার। তবে এটি ছিল গ্রুপে তৃতীয় স্থানের লড়াই। কারণ এ ম্যাচের বিজয়ী দল এই গ্রুপের তৃতীয়স্থান পাবে। ড্র হলে গোল গড়ের ওপর নির্ভর করবে কারা তৃতীয় হবে।
ভলগোগ্রাদে ম্যাচের শুরু থেকেই মিশরকে চাপিয়ে খেলতে থাকে সৌদি আরব। বল দখলে নিয়ে নেয়ার কাজটা ভালোভাবেই সম্পন্ন করে তারা। কিন্তু ২২ মিনিটে গোলের স্বাদ নেয় মিশর। মিডফিল্ডার আব্দুল্লাহ এল সাইদের পাস থেকে বক্সের বাইরে থেকে বাঁ-পায়ের শটে গোল করেন স্ট্রাইকার মোহাম্মদ সালাহ। চলতি বিশ্বকাপে দ্বিতীয় গোল করেন সালাহ। রাশিয়ার বিপক্ষে ৩-১ গোলে হারা ম্যাচে সান্তনাসূচক গোল করেছিলেন সালাহ।
পিছিয়ে পড়ার পর ম্যাচে সমতা আনার জন্য মরিয়া হয়ে উঠে সৌদি আরব। যার প্রেক্ষিতে ৪১ মিনিটেই সমতা আনার সুযোগ পেয়েছিলো সৌদি আরব। নিজেদের ডি বক্সের ভেতর হ্যান্ডবল করেন মিশরীয় ডিফেন্ডার আহমেদ ফাতহি। পেনাল্টির সিদ্বান্ত দেন রেফারি। কিন্তু সৌদি ফরোয়ার্ড ফাহাদ আল মুবালাদের পেনাল্টি শট ডান দিকে ঝাপ দিয়ে আটকে দেন বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বয়সী ফুটবলারের হিসেবে খেলতে নেমে রেকর্ড গড়া এসাম এল হাদারি। ৪৫ বছর পাঁচ মাস বয়সে খেলতে নেমে বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে রেকর্র্ড গড়েন তিনি।
৪১ মিনিটে পেনাল্টি মিস করলেও প্রধমার্ধের ইনজুরি সময়ে আবারো পেনাল্টি পায় সৌদি আরব। এবার সুযোগটি কাজে লাগান মিডফিল্ডার সালমান আল ফারাজ। ফলে ১-১ সমতা নিয়ে ম্যাচের বিরতিতে যায় সৌদি আরব।
দ্বিতীয়ার্ধেও নিজেদের নৈপুণ্য অব্যাহত রাখার চেষ্টা করেছে সৌদি আরব। নিজেদের আয়ত্বে ৬০ শতাংশ বল রেখেছে। মিশরের গোলমুখে আক্রমণ চালিয়ে গোল আদায় করে নিতে পারেনি। অপর প্রান্তে আক্রমন রচনা করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় মিশর। ফলে ড্র’র দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলো ম্যাচটি।
নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষ হবার পর ৫ মিনিট ইনজুরি সময় পায় সৌদি আরব ও মিশর। আর ইনজুরি সময়ে বাজিমাত করে সৌদি আরব। প্রথমার্ধের মত এই অর্ধের ইনজুরি সময়ের পঞ্চম মিনিটে গোল করে দুর্দান্ত এক জয়ের স্বাদ নেয় সৌদি আরব। মিডফিল্ডার আব্দুল্লা ওতাইফের পাস থেকে ডান-প্রান্ত দিয়ে গোল করেন সালেম আল দাওসারি। বিশ্বকাপ ইতিহাসে এটি সৌদি আরবের তৃতীয় জয়। ১৯৯৪ সালে দু’টি ম্যাচে জিতেছিলো তারা। এরপর তিন আসরে জয়হীন থাকলেও এবার একটি জয়ের স্বাদ নিতে পারলো সৌদি আরব।
এই জয়ে ৩ খেলায় ১ জয়ে ৩ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপে তৃতীয়স্থান পেল সৌদি আরব। ২০০৬ সালে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়া সৌদি আরব নিজেদের প্রত্যাবর্তন বিশ্বকাপটি স্মরনীয় করে রাখতে পারলো না।
১৯৩৪ এবং সর্বশেষ ১৯৯০ সালে বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছিলো মিশর। ঐ দুই আসরেই গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিলো তারা। তাই ২৮ বছর পর তৃতীয়বারের মত বিশ্বকাপে খেলতে এসে এবারও গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিতে হলো মিশরকে। আগের দুই আসরে জয়ের মুখ না দেখা মিশর এবারও জয়হীন থাকলো। (বাসস) :



sky television /স্কাই টিভি


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *