কেশবপুরে বিল খুকশিয়ায় স্লুইস গেটে পলি পড়ে ভরাট

0
64

২৭ বিলে জলাবদ্ধতা, ইরি-বোরো চাষ অনিশ্চিত
এলাকাবাসির স্বে”ছাশ্রমে পলি অপসারণ কার্যক্রম শুরু
এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) থেকে ॥
যশোরের কেশবপুর উপজেলার সুফলাকাটি ইউনিয়নের বিল খুকশিয়ার ডায়ের খালে স্লুইসগেটের সামনে শ্রীহরি নদীতে ১ কিলোমিটার পলি পড়েছে। যার ফলে সুফলাকাটি, কালিচরণপুর, মনোহরনগর, বাগডাঙ্গা, পাঁজিয়া, হদ-সহ কেশবপুর ও মনিরামপুর উপজেলার ২৭টি বিলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে চাষবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
কেশবপুর ও মনিরামপুর উপজেলার ২৭টি বিলে জলাবদ্ধতার কারণে সুফলাকাটি ইউপি চেয়ারম্যান মাষ্টার আব্দুস সামাদ ও পাঁজিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামের যৌথ উদ্যোগে জলাবদ্ধতা নিরসনে সম্প্রতি পাঁজিয়া ইউপি ভবনের সামনে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন সুফলাকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাষ্টার আব্দুস সামাদ, পাঁজিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মুকুল, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আবু সাঈদ লাভলু, ইউপি সদস্য মাহাবুবুর রহমান, সুজিত মন্ডল, বৈদ্যনাথ সরকার, খলিলুর রহমান, ইয়ার হোসেন, সাবেক ইউপি সদস্য দুর্গাপদ সরকার, বিশিষ্ট ঘের ব্যবসায়ী দ্বীন মোহাম্মদ খিরু, মাস্টার ললিত মোহন সরকার-সহ আরও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। সভায় এলাকাবাসির স্বে”ছা শ্রমে পলি অপসারণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
তারই প্রেক্ষিতে সামবার সকালে উপরোক্ত বিলগুলির পানি নিষ্কাশনের জন্য বিল খুকশিয়ার আট গেট বিশিষ্ট স্লুইসগেটের সামনের ভরাট হওয়া পলি স্বে”ছায় ২৭ বিলের আশেপাশের দেড় শতাধিক চাষী অপসারণ কার্যক্রমে অংশ নেয়। বেঁচে থাকার তাগিদে বিল খুকশিয়ার ২৭ বিলের পানি নিষ্কাশন করতে পলি অপসারণের কাজ করে যা”েছ।
পলি অপসারণ করতে আসা চাষীরা জানান, শুধুমাত্র এভাবে পলি অপসারণ করে পানি নিষ্কাশন করা সম্ভব নয়। তাই অতিদ্রুত পলি অপসারণ করে ইরি-বোরো চাষের উপযোগী করতে সরকারের কাছে জোর দাবি জানান।